শুক্রবার,৩রা এপ্রিল, ২০২০ ইং,২০শে চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ,



রি-হায়ারিংয়ের নামে মালয়েশিয়ায় প্রবাসীদের সাথে প্রতারণা!


প্রবাস সংবাদ :
১৬.০২.২০২০

বৈধতা দেয়ার নামে মালয়েশিয়ায় ছয় লাখেরও বেশি অভিবাসী বা প্রবাসীর সাথে প্রতারণার অভিযোগ উঠেছে। রি-হায়ারিংয়ের নামে প্রবাসীদের কাছ থেকে দেশটির নেয়া মোটা অঙ্কের টাকা উদ্ধারে আন্দোলন শুরু করেছে মালয়েশিয়ার মানবপাচারবিরোধী কাউন্সিল।

গত ১৪ ফেব্রুয়ারি দেশটির কিনিতে প্রকাশিত খবরে বলা হয়, মালয়েশিয়ার তৎকালীন সরকার রি-হায়ারিং প্রোগ্রামের নামে অবৈধ অভিবাসী শ্রমিকদের কাছ থেকে দুই বিলিয়ন রিংগিত তথা বাংলাদেশী টাকায় প্রায় চার হাজার কোটি টাকা তিনটি ভেন্ডর কোম্পানি হাতিয়ে নিলেও অবৈধ কর্মীদের বৈধতা দিতে পারেনি তারা। উল্টো কর্মীদের হয়রানির অভিযোগ উঠেছে। এমন পরিস্থিতিতে নিয়োগপ্রাপ্ত তিনটি (ভেন্ডর) সংস্থার বিরুদ্ধে একটি পুলিশ প্রতিবেদন দায়ের করেছে মালয়েশিয়ার সেলাঙ্গারের মানবপাচারবিরোধী কাউন্সিল। প্রতিবেদনে বলা হয়, অনিবন্ধিত অভিবাসী শ্রমিকদের জন্য পুনর্বাসন কর্মসূচি করতে ব্যর্থ হয়েছে মালয়েশিয়া সরকার।

সেলাঙ্গারের মানবপাচারবিরোধী কাউন্সিল অবৈধ কর্মীদের টাকা পুনরুদ্ধারে ওই তিনটি ভেন্ডরের বিরুদ্ধে পুলিশের কাছে একটি প্রতিবেদন জমা দিয়েছে। মানবপাচারবিরোধী কাউন্সিলের সদস্য আবদুল আজিজ ইসমাইল, পুলিশি তদন্তপূর্বক অবৈধ বিদেশী কর্মীদের কাছ থেকে নেয়া অর্থ উদ্ধারের আহ্বান জানান।
এ দিকে গত (১৭ ডিসেম্বর) ফ্রি-মালয়েশিয়া টুডে নামে দেশটির একটি বেসরকারি সংস্থার একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। এতে বলা হয়, বৈধতা না পাওয়া অভিবাসীদের কাছ থেকে নেয়া অর্থের পরিমাণ প্রায় সাড়ে সাত হাজার কোটি টাকা।

২০১৬ সালে ‘রিহায়ারিং প্রোগ্রাম’ নামে একটি প্রকল্প হাতে নেয় মালয়েশিয়া সরকার। প্রকল্পটি শেষ হয় ২০১৮ সালে। তিনটি ভেন্ডরের মাধ্যমে প্রকল্পটি পরিচালনা করে দেশটির কয়েকটি বেসরকারি সংস্থা। তারা অভিবাসীর কাছ থেকে জনপ্রতি ৬ হাজার রিংগিত (বাংলাদেশী টাকায় প্রায় ১ লাখ ২০ হাজার) জমা নেয়।
ওই প্রকল্পে সাত লাখ ৪৪ হাজার অভিবাসীর কাছ থেকে টাকা জমা নেয়া হলেও ওয়ার্ক পারমিট দেয়া হয়েছে মাত্র এক লাখ ১০ হাজার অভিবাসীকে। মালয়েশিয়ায় অভিবাসীদের নিয়ে কাজ করা একটি বেসরকারি সংস্থার প্রতিবেদনে এসব তথ্য উঠে এসেছে। প্রতিবেদনে বলা হয়, বাকি ছয় লাখ ৩৪ হাজার অভিবাসীকে ওয়ার্ক পারমিট দেয়া হয়নি। এমনকি পরবর্তীতে তাদের টাকাও ফেরত না দিয়ে গত বছর অবৈধ অভিবাসীদের নিজ নিজ দেশে ফেরত পাঠানো হয়।

বেসরকারি ওই সংস্থার পরিচালক জোসেফ পল মালাইমফ বলেন, টাকা দিয়েও এসব অভিবাসী বৈধতা পাওয়া তো দূরের কথা, তারা পাসপোর্টও হারিয়েছেন। টাকা আর পাসপোর্ট দুটোই ভেন্ডররা হজম করেছে। তবে বিষয়টি নিয়ে সরকার কোনো দায় নিতে চায় না। অন্য দিকে ভেন্ডররা দায় চাপিয়ে দিচ্ছে সরকারের ওপর।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি