বৃহস্পতিবার,২০শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ইং,৭ই ফাল্গুন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ,
  • প্রচ্ছদ » জাতীয় » মতবিনিময় সভায় হট্টোগোল
    মালয়েশিয়ায় সিন্ডিকেট হবে কি না গ্যারান্টি নেই : বায়রা সভাপতি (ভিডিও)



মতবিনিময় সভায় হট্টোগোল
মালয়েশিয়ায় সিন্ডিকেট হবে কি না গ্যারান্টি নেই : বায়রা সভাপতি (ভিডিও)


প্রবাস সংবাদ :
০৪.০৯.২০১৯

বিশেষ প্রতিবেদক :

সৌদি আরব ও মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার নিয়ে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় সভার আয়োজন করে জনশক্তি রফতানিকারকদের সংগঠন বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব ইন্টারন্যাশনাল রিক্রুটিং এজেন্সিজ (বায়রা)। শুরুতেই স্বাগত বক্তব্য রাখেন বায়রা সভাপতি বেনজীর আহমেদ এমপি। এরপর মহাসচিব শামীম আহমেদ চৌধুরী নোমান বক্তব্য শুরু করতে চাইলে সহসভাপতি মনসুর আহমেদ কালাম (সাময়িক বরখাস্ত) কিছু বলার চেষ্টা করেন। কিন্তু তাকে থামিয়ে দেন সভাপতি। এসময় কালাম মহাসচিবের প্রতি বর্তমান ২৭ সদস্যের কমিটির ১৪ জনই অনাস্থা দেয়া হলেও কেন তাকে এখানে কথা বলতে দেয়া হচ্ছে তা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। এসময় তিনি অভিযোগ করেন, আজকের সভায় অধিকাংশ ইসি সদস্যকে আমন্ত্রণই জানানো হয়নি। এক পর্যায়ে থামিয়ে দেয়ার চেষ্টা করেন বায়রা সভাপতি। এ সময় সভাপতির সাথে সহসভাপতিসহ যাদের দাওয়াত দেওয়া হয়নি তাদের বাদানুবাদ হয়। পরে অবশ্য মহাসচিব নোমান বক্তব্য রাখেন।

এদিকে দাওয়াত দেয়া না হলেও বায়রার মতবিনিময় সভা শুরু হলেই সভাকক্ষে প্রবেশ করেন সিনিয়র সহ-সভাপতি শফিকুল আলম ফিরোজ, সহ-সভাপতি মনসুর আহমদ কালাম, যুগ্ম সম্পাদক এডভোকের সাজ্জাদ হোসেনসহ নির্বাহী কমিটির ১৩ জন সদস্য। তাদেরকে আমন্ত্রণই জানানো হয়নি, চেয়ারও ছিলো না। পরে চেয়ার এনে বসার ব্যবস্থা করা হয় তাদের।

সভার শুরুতে লিখিত বক্তব্যে সভাপতি বেনজীর আহমদ বলেন, মন্ত্রণালয়ের সাথে বায়রাও সিন্ডকেটমুক্ত শ্রমবাজারের পক্ষে কাজ করছে। মালয়েশিয়া ও সৌদি আরবের শ্রমবাজার নিয়ে সম্প্রতি কিছু গণমাধ্যমের খবরে বিভ্রান্তি সৃষ্টি হচ্ছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি। মালয়েশিয়ার শ্রমবাজারে সিন্ডিকেট হবে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে বেনজীর আহমেদ বলেন, সিন্ডিকেট হবে কিনা-এ ব্যাপারে গ্যারান্টি দিতে পারছি না।

এদিকে শ্রমবাজার নিয় সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছিলেন সভাপতি বেনজীর আহমেদ ও মহাসচিব শামীম আহমেদ চৌধুরী নোমান। কিছুক্ষণ পরপরেই বিভিন্ন প্রসঙ্গে কথা বলতে উদ্যত হন সহসভাপতি মনসুর আহমেদ কালাম। যাকে বায়রা থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। তাকেসহ আরো ২ জনকে বরখাস্ত করা হয়েছে। অনেকটা জোর করেই কথা বলতে চাইলে সভাপতির আপত্তির মুখে পড়েন সহ-সভাপতি মনসুর আহমদ কালাম। সভাপতি বলেন, প্রশ্নের জবাব শুধু তিনিই দেবেন। আরেক এক প্রশ্নে মহাসচিব শামীম আহমেদ চৌধুরী জবাব দিতে গেলে অন্য পক্ষের তোপের মুখে পড়েন। তারা বলেন, সভাপতি ছাড়া কেউ কথা বলতে না পারলে, মহাসচিবও বলতে পারবে না। কারণ, সাধারণ সদস্য ও নির্বাহী কমিটির অধিকাংশ সদস্য মহাসচিববের প্রতি একাধিকবার অনাস্থা দিয়েছে। তিনি এখানে কথা বলতে পারবেন না।

এসময় সভাপতি বেনজীর আহমদ বলেন, আমি তাকে (মহাসচিব) অনুমতি দিয়েছি কথা বলার জন্য। এনিয়ে দুই পক্ষের বাকবিতন্ডা শুরু হয়।

সাংবাদিকদের নানা প্রশ্নের জবাব দিতে গিয়ে বেনজীর আহমদ বলেন, মালয়েশিয়া শ্রমবাজারে আবারো সিন্ডিকেট হবে না, এমন নিশ্চয়তা দেয়া যাচ্ছে না। নানা মাধ্যমে অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে যে, সিন্ডিকেট এরইমধ্যে হয়ে গেছে। তবে এবার বায়রা সিন্ডিকেটের পক্ষে না।

বর্তমান কমিটির শুরু থেকেই ২টি ভাগে বিভক্ত বায়রা। একটির নেতৃত্বে সভাপতি বেনজীর আহমেদ ও মহাসচিব শামীম আহমেদ চৌধুরী নোমান এবং আরেক অংশে নেতৃত্বে আছেন সিনিয়র সহসভাপতি শফিকুল আলম ফিরোজ ও সহসভাপতি মনসুর আহমেদ কালাম।

বায়রার আনুষ্ঠানিক মতবিনিময় সভার আনুষ্ঠানিকতা শেষে সাংবাদিকদের সাথে কথা বলেন দ্বিতীয় অংশের নেতারা।  সিনিয়র সহ-সভাপতি শফিকুল আলম ফিরোজ বলেন, সৌদি আরবের ভিসা সেন্টার পক্ষে রায়রায় নামে যে চিঠি দেয়া হয়েছিলো, সেসময় নির্বাহী কমিটির কোন সদস্যের বক্তব্য বা মতামত নেয়া হয়নি। মহাসচিবকে এই সভায় কথা বলতে দেয়ার বিরোধিতা করেন তিনি। বলেন, সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক সদস্যদের সাথে কোন আলোচনা ছাড়াই সকল সিদ্ধান্ত নেয়া হচ্ছে রায়রাতে।

সহ-সভাপতি মনসুর আহমদ কালাম বলেন, আমাদের মধ্যে একটা ভাগ হয়েছে। ২৭ জনের কমিটিতে আমরা ১৪ জন ইসি সদস্য, মহাসচিবের প্রতি অনাস্থা দিয়েছি। তারপরও তিনি কিভাবে এই পদে থাকেন? মহিসচিব এনজিওর দালালি করেন এবং তিনি বায়রার চিঠি বিক্রি করেন। যেখানে সেখানে চিঠি দিয়ে দেন নোমান সাহেব। মহাসচিবের কারণেই বায়রায় অনৈক্য হয়েছে।

তারা মনে করেন বায়রার এই অনৈক্যের কারণে শ্রমবাজারে নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে। বিশ্বের বিভন্ন শ্রমবাজারে কর্মী যাওয়া কমে ডাবে বলেও আশঙ্কা তাদের।

এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন, যুগ্ম-মহাসচিব সাজ্জাদ হোসেন, অর্থ সচিব শওকত হোসেন সিকদার, ক্রীড়া সচিব এস এম নাজমুল হক, জনসংযোগ সচিব মোহাম্মদ আলী সিদ্দিকী খোকন, সদস্য কল্যাণ সচিব কফিল উদ্দিন মজুমদার প্রমুখ।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি